Tuesday, 24 October, 2017, 4:35 AM
Home বিবিধ
৮১ বছর বয়সী পিএইচডিধারী আবর্জনা কর্মী
Published : Friday, 23 June, 2017 at 3:04 PM, Count : 0

লেবানিজ নারী জয়নব মোকাল্লেদকে তার গ্রামের আবর্জনা সংগ্রহ করার কাজে নিয়োজিত করা হয়েছিল রাষ্ট্রীয় কার্যক্রমের অংশ হিসেবে। দেশটিতে গেল দুই বছরে আবর্জনা নিয়ে যে তীব্র সমস্যা পোহাতে হয়েছে সেখানে জয়নবের চেষ্টায় নতুন চেহারা পেয়েছে তার গ্রাম ও চারপাশ। যার স্বীকৃতি হিসেবে তাকে দেওয়া হয়েছে ওয়েষ্ট ম্যনেজমেন্টে সম্মান সূচক পিএইচডি। আর তাই প্রতিদিন মানুষ তার কাছে আসছেন জানার জন্য যে তিনি এই বয়সেও কিভাবে একাজ করলেন। বিবিসি।

বিবিসিকে জয়নব বলেন, “সর্বত্রই আবর্জনা থাকতো আর শিশুরা থাকতো খুবই নোংরা।” এসময় নিজের অতীত অভিজ্ঞতার কথা বলেন তিনি। ১৯৮০ এবং নব্বইয়ের দিকে ইসরায়েল লেবাননের দক্ষিণাংশ দখল করে নিয়েছিল পনেরো বছরের জন্য। তখন জয়নবের গ্রাম আরবসালিমের আবর্জনা সংগ্রহসহ পুরো প্রক্রিয়া ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। বছরের পর বছর জমে থাকা আবর্জনা পর্বত আকার ধারন করতে শুরু করে এবং জয়নব আঞ্চলিক গভর্নরের কাছে যান সাহায্যের জন্য।

কিন্তু গভর্নরের কাছ থেকে আশানুরূপ জবাব না পেয়ে তিনি নিজের গ্রামের নারীদের সাহায্য চাইলেন। কারণ তিনি চাইছিলেন তার গ্রামের নারীদের ক্ষমতায়ন করতে এবং তিনি এটাও ভেবেছিলেন যে এটা তাদের জন্য ভালো কাজ হবে। জয়নবের তখন দরকার ছিল একদল স্বেচ্ছাসেবকের, যারা বাড়ি বাড়ি গিয়ে আবর্জনা পুনঃপ্রক্রিয়াকরণ সম্পর্কে বলবে।


তাদের হাতে ছিল না কোনো উপকরণ এবং অবকাঠামো। এমন অবস্থায় জয়নবের বান্ধবী খাদিজা ফারহাত একটি লরি নিয়ে আসলেন নিজের পকেটের পয়সা ব্যয় করে। আর জয়নব তার বাড়ির পেছনের অংশটিকে কাজে লাগালেন পুনর্ব্যবহারযোগ্য বর্জ্য জমা করার কাজে। কিন্তু বিষয়টি এমন নয় যে ওই দশহাজার গ্রামবাসীর আবর্জনা সংগ্রহ করার জন্য তারা পয়সা দেবে। তাই স্বেচ্ছাসেবকরাই নিজেরা পয়সা দিলেন। ১৯ বছর পর এখনও সেই একই ভাবে স্বেচ্ছাসেবকরা পয়সা দিয়ে যাচ্ছেন। ৪৬ জন স্বেচ্ছাসেবক বছরে ৪০ ডলার করে দিয়ে যাচ্ছেন।

কল ফর দ্য আর্থ নামে প্রতিষ্ঠিত সংস্থা থেকে পুনর্ব্যবহারযোগ্য বর্জ্য দিয়ে গৃহস্থলীতে কাজে লাগে এমন পণ্য তৈরি করছেন তারা। গৃহস্থলী কাজে লাগে এমন পণ্য খুব সহজেই বিক্রি হয় বলেও জানায় জয়নব। শুরুর দিকে তারা কাচ, কাগজ এবং প্লাস্টিক সংগ্রহ করতেন। কিন্তু এখন তারা ইলেকট্রনিক বর্জ্য সংগ্রহ করছে এবং একজন বিশেষজ্ঞ নিয়োগ দিয়েছেন, যার কাজ দক্ষিণ লেবাননের আবহাওয়া উপযোগী কমপোস্ট তৈরি করা।

টানা তিন বছরের চেষ্টার পর নিজেদের সংস্থা চালানোর জন্য এক টুকরো জমি পান তারা। আর এতে করে জয়নবের বাড়ির পেছনের বাগানটিকে বাঁচানো সম্ভব হয়। এর দশ বছর পর তারা ইতালির দূতাবাস থেকে একটি ওয়্যারহাউস বানানোর জন্য সাহায্য পায়। বর্তমানে এই সংস্থাটিতে বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মানুষ আসছেন, কিভাবে সংস্থাটি কাজ করে তা জানার জন্য।





« PreviousNext »

সর্বশেষ
অধিক পঠিত
এই পাতার আরও খবর
ইনফরমেশন পোর্টাল অব বাংলাদেশ (প্রা.) লিমিটেড -এর চেয়ারম্যান সৈয়দ আবিদুল ইসলাম ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ রওশন জামান -এর পক্ষে সম্পাদক কাজী আব্দুল হান্নান  ও উপদেষ্টা সম্পাদক সৈয়দ আখতার ইউসুফ কর্তৃক প্রকাশিত ও প্রচারিত
ইমেইল: info@iportbd.com, বার্তা বিভাগ: newsiport@gmail.com