Sunday, 19 November, 2017, 3:23 AM
Home আইন-আদালত
প্রধান বিচারপতির একটি উক্তি প্রসঙ্গে
বদরুদ্দীন উমর লিখেছেন যুগান্তরে
Published : Sunday, 14 May, 2017 at 3:00 PM, Count : 17
বাংলাদেশের বর্তমান প্রধান বিচারপতির একটি উক্তি প্রকাশিত হয়েছে যুগান্তরে (১১.০৫.২০১৭)। তিনি বলেছেন, ‘দেশের কোনো ধর্ম থাকতে পারে না। রাষ্ট্রেরও ধর্ম থাকতে পারে না।’ তিনি এমন একটি দেশের প্রধান বিচারপতি যেখানে সংবিধানের অষ্টম সংশোধনীর জোরে ইসলামকে রাষ্ট্রধর্ম হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। কাজেই তার এ বক্তব্যের বিরুদ্ধে এখন চারদিকে তোলপাড় সমালোচনা শুরু হওয়ার কথা। এ সমালোচনা সরকারও করতে পারে। কারণ এর দ্বারা প্রধান বিচারপতি সংবিধানের পরিপন্থী অবস্থান গ্রহণ করেছেন। সরকার ছাড়াও এ সমালোচনা আরও জোরেশোরে হওয়ার কথা, যেসব প্রতিক্রিয়াশীল ধর্মীয় সংগঠনের সঙ্গে এখন সরকার হাত মিলিয়েছে, তাদের পক্ষ থেকে।

ষোড়শ সংশোধনী নিয়ে সরকারের সঙ্গে প্রধান বিচারপতির সম্পর্ক এখন খুব তপ্ত ও তিক্ত। সরকার ও বিচার বিভাগের মধ্যে সম্পর্ক কিছুদিন থেকে ভালো যাচ্ছে না। প্রধান বিচারপতির সঙ্গে সরকারের অ্যাটর্নি জেনারেলের যে বাকবিতণ্ডার খবর সংবাদপত্রে ছাপা হয়েছে, তাকে একদিক থেকে রাষ্ট্রের অন্তর্দ্বন্দ্ব হিসেবে আখ্যায়িত করা যায়। এ ধরনের অন্তর্দ্বন্দ্ব সমগ্র শাসক শ্রেণীর জন্যই এক শঙ্কাজনক ব্যাপার।

রাষ্ট্রের ধর্ম থাকে কিনা এ প্রসঙ্গে এখানে আলোচনার প্রয়োজন নেই। তবে এটা বলা দরকার যে, এ প্রসঙ্গে প্রধান বিচারপতির বক্তব্য মনে হয় অসম্পূর্ণ। তিনি যদি বলতেন, কোনো ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্রের কোনো রাষ্ট্রধর্ম থাকতে পারে না, তাহলে অনেক ভালো হতো। কারণ এর ফলে এ দেশে সংবিধানের নীতির মধ্যে যে পারস্পরিক বৈপরীত্যের অবস্থা তৈরি হয়ে আছে, তা নিয়ে একটা সাংবিধানিক বিতর্কের অবতারণা হতে পারত। অবশ্য এ বিতর্কের সম্ভাবনা যে নেই এটা নয়। কারণ সংবিধানের মূলনীতি অনুযায়ী বাংলাদেশ একটি ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র, কিন্তু এ সংবিধানেরই অষ্টম সংশোধনী অনুযায়ী বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় ধর্ম ইসলাম! অর্থাৎ বাংলাদেশ একটি ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র, কিন্তু এ রাষ্ট্রের ধর্ম হল ইসলাম! মনে হয় বাংলাদেশে অদ্ভুত ও উদ্ভট বলে কিছু নেই!!

ইংরেজিতে যাকে Secular বলে তার বাংলা প্রতিশব্দ হিসেবে যে শব্দটি ব্যবহৃত হয় তা হল ধর্মনিরপেক্ষ। Secular-এর এই বাংলা প্রতিশব্দের মধ্যেই ধর্মের রাজনৈতিক ব্যবহারের বীজ নিহিত আছে। ধর্মনিরপেক্ষতা মানে ধর্মহীনতা বা রাষ্ট্রের সঙ্গে ধর্মের সম্পর্কহীনতা বোঝায় না। এর অর্থ হল, রাষ্ট্রে সব ধর্মের স্থান ও মর্যাদা একই রকম। এটা দেখানোর জন্য অনেক সময় বিভিন্ন অনুষ্ঠানে কোরআন পাঠের সময় গীতা, বাইবেল, ত্রিপিটক ইত্যাদিও পাঠ করা হয়। কিন্তু এ রকম ধর্মনিরপেক্ষতার সঙ্গে সামাজিক ও রাজনৈতিক ক্ষেত্রে সব ধর্মের মানুষের অভিন্ন অধিকার ও অবস্থান বোঝায় না। উপরন্তু যে ধর্মের লোকের সংখ্যা বেশি বা যাদের হাতে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা থাকে, তাদের ধর্মই অন্যসব ধর্মকে নামমাত্র করে রেখে নিজেদের ধর্মকেই প্রাধান্যে আনে।

আসলে Secularism বলতে এ ধরনের ধর্মনিরপেক্ষতা বোঝায় না। Secular-এর অর্থ হল, ধর্মের সঙ্গে কোনো রকম সম্পর্ক না থাকা। তাই Secularism-এর যথার্থ প্রতিশব্দ হল ধর্মবিযুক্ততা। এ অর্থেই ইউরোপে বুর্জোয়া বিকাশের সময় Secular শব্দটির উদ্ভব ও ব্যবহার হয়। দক্ষিণ এশিয়া, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া ইত্যাদি অঞ্চলে বুর্জোয়া বিকাশ যেভাবে হয়েছে তাতে ধর্মকে রাষ্ট্রব্যবস্থা থেকে একেবারে ঝেড়ে ফেলার মতো শর্ত তৈরি না হওয়ার কারণেই Secular শব্দটির প্রতিশব্দ ধর্মনিরপেক্ষ করে প্রকৃতপক্ষে রাজনীতিতে ধর্ম রক্ষার ব্যবস্থাই হয়েছে। যারা নিজেদের ধর্মনিরপেক্ষ বলে ঢেড়ি পিটিয়ে থাকেন, তারা ধর্মনিরপেক্ষতার নামে প্রকৃতপক্ষে রাজনীতিতে ধর্মকে রক্ষার ব্যবস্থাই করেন। বাংলাদেশে যেভাবে ধর্মনিরপেক্ষতাকে ব্যবহার করা হয়ে থাকে, তার ফলেই দেশে প্রকৃত Secularism বলে কিছু দেখা যায় না। তথাকথিত ধর্মনিরপেক্ষতাবাদীরা যেভাবে সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে ‘সংগ্রাম’ করেন, তাতে ধর্মনিরপেক্ষতার মধ্যে ধর্মীয় চেতনায় সুড়সুড়ি দেয়ার উপাদান থাকার কারণেই শেষ পর্যন্ত সংখ্যাগুরুর ধর্মই প্রাধান্যে আসে।

বলা হয়ে থাকে, ধর্ম ব্যক্তিগত ব্যাপার। ব্যক্তিগতভাবে ধর্ম পালনের অধিকার সবারই আছে। গ্রামের সাধারণ মানুষ ও দেশের গরিবদের মধ্যে যারা ধর্মকর্ম করেন, তারা ধর্মকে ব্যক্তিগত ব্যাপার ধরে নিয়েই সেটি করে থাকেন। কিন্তু যে মধ্যবিত্ত শিক্ষিত লোকরা, এমনকি যারা সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে সংগ্রাম করছেন বলে নিজেদের জাহির করেন, তারাই নিজেদের ভিন্ন ভিন্ন অবস্থান থেকে ধর্মচর্চাকে ব্যক্তি পর্যায় থেকে বাইরে এনে রাজনীতি, সংস্কৃতি ইত্যাদির সঙ্গে সম্পর্কিত করেন। এ কারণে দেখা গেছে, এ ধরনের সাম্প্রদায়িকতাবিরোধীরা যতই ধর্মের রাজনৈতিক ব্যবহারের বিরুদ্ধে তাদের আন্দোলন করেন, ততই দেশে সাম্প্রদায়িকতার শক্তি দুর্বল না হয়ে বৃদ্ধি পায়। এতে বিস্মিত হওয়ার কিছু নেই, কারণ এ ধরনের সাম্প্রদায়িকতাবিরোধীরা যে রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যুক্ত সেই আওয়ামী লীগ কোনো সময়ই ধর্মের রাজনৈতিক ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকেনি। তারা ১৯৯৬ সালে জামায়াতে ইসলামীর সঙ্গে যুগপৎ আন্দোলন করেছিল, তাদের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক আবদুল জলিল খেলাফত মজলিসের সঙ্গে কিছু ধর্মীয় কর্মসূচির ভিত্তিতে এক সমঝোতা করেছিলেন। এখন আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী হেফাজতে ইসলামের সঙ্গে এক সমঝোতায় আবদ্ধ হয়ে এ ধর্মভিত্তিক সংগঠনটিরও নানা দাবি সরকারিভাবে মেনে নেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন, যার মধ্যে আছে কওমি মাদ্রাসার স্বীকৃতি এবং এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের সর্বোচ্চ ডিগ্রিকে সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয়ের এমএ ডিগ্রির সমান মর্যাদা দান, যার অর্থ দাঁড়ায় সরকারি প্রশাসনে তাদের চাকরির ব্যবস্থা করা। এসবই যে আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে, ধর্মের রাজনৈতিক ব্যবহারের উদ্দেশ্যে করা হয়েছে, এতে সন্দেহের কারণ নেই।

এ কাজ এত নগ্নভাবে করা হয়েছে যে, এর বিরুদ্ধে এখন আওয়ামী ঘরানার বুদ্ধিজীবীরা পর্যন্ত ক্ষিপ্ত হয়ে বিবৃতি দিচ্ছেন, ছোটখাটো জমায়েত পর্যন্ত করছেন! কিন্তু এটা ভাবলে বিস্মিত হতে হয় যে, আওয়ামী লীগ যখন খেলাফতে মজলিসের সঙ্গে সমঝোতা করেছিল, তখন তারা এভাবে তার সমালোচনায় এগিয়ে আসেননি। এরশাদ সংবিধান সংশোধন করে ইসলামকে বাংলাদেশের রাষ্ট্রধর্ম করার সময় তারা তার বিরুদ্ধে সোচ্চার থাকলেও পরে আওয়ামী লীগ সেই সংশোধনী বাতিল করার সুযোগ পাওয়া সত্ত্বেও তা করেনি। ১৯৯৬ সালে তাদের সরকারের আমলে, বিশেষ করে পরবর্তীকালে ২০০৯ ও ২০১৪ সালের জাতীয় সংসদে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা সত্ত্বেও কিছু না করে সেই সংশোধনীকে অক্ষত রাখার বিরুদ্ধে তারা কিছু বলেননি। এসব ক্ষেত্রে তাদের কোনো অবস্থান নেই! তাদের অসাম্প্রদায়িকতা এবং ধর্মের রাজনৈতিক বিরোধিতার সঙ্গে আওয়ামী লীগ কর্তৃক অষ্টম সংশোধনী বহাল রাখার কোনো বিরোধ নেই!! উপরন্তু এসবের সঙ্গেই তারা বসবাস করে এসেছেন। এখন আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী হেফাজতের সঙ্গে যে সমঝোতা করেছেন, তার বিরুদ্ধে আওয়ামী ঘরানার লেখক, সাহিত্যিক, সংস্কৃতিসেবী, বুদ্ধিজীবীরা ক্ষিপ্ত ও সোচ্চার। তারা এ অবস্থায় হতবুদ্ধি। তাদের মনে হয়েছে এ ব্যাপার আকস্মিক! কিন্তু এটা মোটেই আকস্মিক নয়। আওয়ামী লীগ প্রথম থেকেই ধর্মের রাজনৈতিক ব্যবহার নানা সময় কৌশলের সঙ্গে করে এসেছে; কিন্তু এর বিরুদ্ধে এ বুদ্ধিজীবীরা কোনো প্রতিবাদ করেননি; উপরন্তু সর্বপ্রকারে সরকারকে সাহায্য-সমর্থন করে এসেছেন। তার পরিণতিই হচ্ছে হেফাজতে ইসলামের সঙ্গে সমঝোতার মাধ্যমে বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার কর্তৃক নির্বাচনী স্বার্থে ধর্মের ব্যবহার। এর জন্য শুধু আওয়ামী লীগকে দোষারোপ করলে পরিস্থিতির বিপজ্জনক দিকটি ঠিকমতো বোঝা যাবে না। এর জন্য আওয়ামী ঘরানার বুদ্ধিজীবীরা নিজেরা কতখানি দায়ী, তার হিসাবও তাদের নিজেদেরই এখন করতে হবে।

১১.০৫.২০১৭

বদরুদ্দীন উমর : সভাপতি, জাতীয় মুক্তি কাউন্সিল







« PreviousNext »

সর্বশেষ
অধিক পঠিত
এই পাতার আরও খবর
ইনফরমেশন পোর্টাল অব বাংলাদেশ (প্রা.) লিমিটেড -এর চেয়ারম্যান সৈয়দ আবিদুল ইসলাম ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ রওশন জামান -এর পক্ষে সম্পাদক কাজী আব্দুল হান্নান  ও উপদেষ্টা সম্পাদক সৈয়দ আখতার ইউসুফ কর্তৃক প্রকাশিত ও প্রচারিত
ইমেইল: info@iportbd.com, বার্তা বিভাগ: newsiport@gmail.com