Sunday, 28 May, 2017, 8:31 PM
Home সাহিত্য-সংস্কৃতি
বিবেক বনাম মন্দ আসক্তি
মোহাম্মদ হাসান জাফরী লিখেছেন ইত্তেফাকে
Published : Tuesday, 9 May, 2017 at 12:00 AM, Update: 09.05.2017 2:23:37 PM, Count : 26

আসক্তি ভালো, আবার আসক্তি খারাপও। ভালো কাজে, ভালো দিকে—  আসক্তি ভালো। আবার খারাপ কাজে, খারাপ দিকে—আসক্তি খারাপ। তাই আসক্তি কিসের প্রতি তার ওপর নির্ভর করে ভালো-খারাপ। আমরা সকলেই ভালো কাজ বা ভালো কিছুকে উত্সাহিত করি আর খারাপ কাজ বা খারাপ কিছুকে নিরুত্সাহিত বা ত্যাগ করতে উপদেশ দিয়ে থাকি। মানুষের বিবেক মানুষকে খারাপ ভালো নির্ণয়ে ভূমিকা রাখে। যদিও অনেক সময় আমরা নিজেদের স্বার্থের কথা বিবেচনায় রেখে বিবেকের ভালো-মন্দ পরামর্শকে উপেক্ষা করে থাকি। দৈনন্দিন জীবনে আমরা যদি নিজের বিবেকের ভালো-মন্দ পরামর্শকে প্রাধান্য দিতাম তাহলে সমাজ ব্যবস্থার এই হাল হতো না, সুখ-সমৃদ্ধি সবার জীবনে বিরাজ করত। আর এই বিবেককে জাগ্রত করে শিক্ষা। সুশিক্ষা সবার জীবনকে সুন্দর ও আলোকিত করে।

কথায় বলে সত্সঙ্গে স্বর্গে বাস আর অসত্সঙ্গে সর্বনাশ। বর্তমানে এ টিভি সিরিয়াল দেখা নিয়ে স্বামী-স্ত্রীতে ঝগড়া বিবাদ, বিবাহ বিচ্ছেদ এমনকি খুনাখুনির পর্যায়ে চলে গেছে বলে প্রকাশিত খবরে জানা যায়। আবার টিভি সিরিয়ালের প্রতি অত্যাধিক আসক্তির কারণে অনেকের জীবনে তথা পরিবারে নেমে এসেছে ঘোর অমানিশা। সমপ্রতি হবিগঞ্জের গ্রামে সংঘটিত হয়েছে ব্যাপক মারামারি, অন্যদিকে সাতক্ষীরার শ্যামনগরে গৃহিণী টিভি সিরিয়াল দেখতে ব্যস্ত থাকায় অসতর্কতার কারণে দুটি শিশু পানিতে পড়ে মারা গেছে।

বর্তমানে প্রায়শই শোনা যায়, টিভি সিরিয়ালের প্রতি বাবা-মায়ের পাশাপাশি ছেলেমেয়েদের আসক্তিও বেড়ে যাওয়ায় স্কুল কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া সন্তানেরা তাদের আশানুরূপ রেজাল্ট করতে ব্যর্থ হচ্ছে। পড়াশুনার ফাঁকে সিরিয়াল দেখা তো একদিকে সময় নষ্ট অন্যদিকে এ আকর্ষণ তাদের পড়াশুনার প্রতি মনোযোগে দারুণভাবে ব্যাঘাত ঘটাচ্ছে। অপরদিকে বিশিষ্ট ব্যক্তিদের মতামত থেকে জানা যায় কোনো কোনো সিরিয়ালে শিক্ষামূলক উল্লেখযোগ্য বিষয় তেমন একটা না থাকায় বরং ছোট থেকেই দর্শকদের মন মানসিকতায়, ঝগড়া বিবাদ, বিদ্বেষ থেকে শুরু করে নানাবিধ পারিবারিক জটিলতার জন্ম দিচ্ছে—যা পরবর্তী সময়ে স্বাভাবিক জীবনযাপনে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে। সুন্দর পরিপাটি উপস্থাপনে গল্পের বিষয়বস্তু যাই হোক—অধিকাংশ দর্শকই দেখার জন্য হুমড়ি খেয়ে পড়ে।

প্রচলিত গানের সুরে বলতে হয়—‘আগে কি সুন্দর দিন কাটাইতাম’। জ্ঞান-বিজ্ঞানের উন্নতির সঙ্গে সঙ্গে যুগটার পরিবর্তন ঘটছে। কিন্তু এই পরিবর্তনকে অবশ্যই মানুষের কল্যাণের দিকে নিয়ে যেতে হবে। নতুনের আহ্বানে সাড়া দিয়ে পুরাতনকে বিদায় দিতে হবে—এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু আমরা এমন কোনো নতুনের আশা করি না—যা কিনা আমাদের দৈনন্দিন জীবনের সুস্থতা, শান্তি, আনন্দ, নির্মল পরিবেশকে নষ্ট করে। আমরা বাঁচার মতো বাঁচতে চাই, সুস্থ স্বাভাবিক জীবন চাই। জাতি, ধর্ম, গোত্র, বর্ণ, নির্বিশেষে কোথাও কোনো ভেদাভেদ চাই না, কবির ভাষায় বলতে হয়—‘সকলের তরে সকলে আমরা; প্রত্যেকে আমরা পরের তরে।’

কোটি কোটি জনসংখ্যার এই দেশে লাখো ভিন্নমত থাকবে—এটাই স্বাভাবিক। সমাজ গঠনে একে অপরের মতামতকে যেমন গুরুত্ব দিতে হবে ঠিক তেমনি সুন্দর মতামতের প্রতি সকলকে আকৃষ্ট করতে হবে। দেশ ও জাতির কল্যাণে সকলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে ভালো কাজের প্রতি আসক্তি থাকতে হবে। তাহলে কাজকর্মে বিশেষ গতি পাবে, দেশ একধাপ এগিয়ে যাবে। জীবনে অবসরের প্রয়োজন আছে, সেই অবসরে যদি গঠনমূলক কিছু না করে অলসতায় জীবন পার হয়—তাহলে তা জীবনেরও অপচয়।

সময় এসেছে উন্নত বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে জীবনকে সুন্দর করার। অপসংস্কৃতির দিকে আমরা যাতে গা ভাসিয়ে না দেই সেজন্য সবাইকে সজাগ থাকতে হবে। ভালো কাজের প্রতি আসক্তি সৃষ্টি করতে পারলেই জীবন সুন্দর হবে, দেশ উন্নত হবে।

লেখক : শিক্ষার্থী, চতুর্থ বর্ষ, ঢাকা মেডিক্যাল  কলেজ








« PreviousNext »

সর্বশেষ
অধিক পঠিত
এই পাতার আরও খবর
ইনফরমেশন পোর্টাল অব বাংলাদেশ (প্রা.) লিমিটেড -এর চেয়ারম্যান সৈয়দ আবিদুল ইসলাম ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ রওশন জামান -এর পক্ষে সম্পাদক কাজী আব্দুল হান্নান  ও উপদেষ্টা সম্পাদক সৈয়দ আখতার ইউসুফ কর্তৃক প্রকাশিত ও প্রচারিত
ইমেইল: info@iportbd.com, বার্তা বিভাগ: newsiport@gmail.com