Monday, 19 February, 2018, 12:09 PM
Home
 একজন বন্ধুকে স্মরণ করে
মার্শা বার্নিকাট লিখেছেন বিভিন্ন পত্রিকায়
Published : Tuesday, 25 April, 2017 at 4:56 PM, Count : 89
নিঃস্বার্থ, সবাইকে ভালোবাসেন, সবাইকে যিনি অনুপ্রেরণা জুগিয়ে থাকেন—জুলহাজ মান্নানকে নিয়ে কিছু বলতে গেলে তাঁর বন্ধুরা এই শব্দগুলোই ব্যবহার করে থাকেন। জুলহাজ—যিনি ছিলেন একজন নিবেদিত সহকর্মী, অনুগত বন্ধু ও মানবাধিকার রক্ষায় অগ্রপথিক। ২০১৬ সালের এপ্রিলে নিষ্ঠুরভাবে খুন হন তিনি। তিনি শুধু আমার সহকর্মীই ছিলেন না, তিনি ছিলেন আমার বন্ধু এবং যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস পরিবারের অংশ। আমরা যারা ভাগ্যবান তাঁকে জানতে পেরে, আজ তাঁর মৃত্যুবার্ষিকীতে, আমাদের সবার ওপর তাঁর অসাধারণ প্রভাব নিয়ে আমি সবার সঙ্গে আমার কিছু অভিজ্ঞতা ভাগ করে নিতে চাই।

নিঃস্বার্থ

জুলহাজ নিঃস্বার্থভাবে জীবনযাপন ও সমাজকে আরো বৈচিত্র্যময় ও অন্তর্ভুক্তিমূলক করার জন্য নিরলসভাবে কাজ করতেন। নিজের চেয়ে তিনি সব সময় অন্যকে এগিয়ে রাখতেন—সেটা কর্মক্ষেত্রেই হোক, আর বন্ধুদের সঙ্গেই হোক অথবা কোনো অচেনা কেউ, এমনকি নিজের বাড়ির একান্তে থাকা অবস্থায় হোক। যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তর ও যুক্তরাষ্ট্র আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থার (ইউএসএইড) সহকর্মীরা তাঁকে বিশেষ স্নেহের দৃষ্টিতেই দেখতেন। কিভাবে জুলহাজ কোনো রকম আর্থিক লাভ, স্বীকৃতি কিংবা পুরস্কারের প্রত্যাশা না করে দুই বছর ধরে একটি কমিউনিটিভিত্তিক প্রতিষ্ঠানের জন্য কাজ করে যাচ্ছিলেন—এ কথা ভেবে এমনকি আজও জুলহাজের সহকর্মীরা আনন্দিত হন। মানুষের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তোলাকে তিনি যে মূল্য দিয়েছিলেন, তার মূল্য অর্থের চেয়েও অনেক অনেক বেশি ছিল তাঁর কাছে। প্রকৃতপক্ষে তিনি খুব স্বাচ্ছন্দ্যে অর্থ বিলিয়ে দিতেন। মনমানসিকতায় উদার জুলহাজ সত্যিকারের বাংলাদেশি আতিথেয়তা ও স্বার্থহীনতার প্রকৃষ্ট উদাহরণ। জুলহাজ যখন মারা যান, সারা বিশ্ব থেকে তাঁর জন্য এসেছিল ভালোবাসার শ্রদ্ধাঞ্জলি। তাঁকে নিয়ে সে সময় যে আলোচনা হয় তাতে একটি বিষয় ফুটে ওঠে আর তা হলো, সারা বিশ্বের বিভিন্ন স্থান থেকে নতুন যারা বাংলাদেশে আসত তাদের তিনি স্বাগত জানাতেন এবং সময় নিয়ে তাদের এ দেশের চমৎকার দিকগুলোর সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিতেন। যাদের জীবনকে তিনি তাঁর ভালোবাসা দিয়ে স্পর্শ করেছেন, আমরা তাদের কাছ থেকে এসব গল্প শুনতেই থাকি।

প্রীতিপূর্ণ

জুলহাজের হৃদয় ছিল ভালোবাসায় পূর্ণ। সবার প্রতি তাঁর ব্যবহারে ছিল সর্বোচ্চ সম্মান ও ভালোবাসাভরা এবং যেকোনো কাজই তিনি করতেন অত্যন্ত আগ্রহের সঙ্গে। তিনি যে শুধু বন্ধুবান্ধব ও সহকর্মীদেরই ভালোবাসতেন তা-ই নয়, তিনি শিল্পকর্ম, ফুল ও গাছপালা এতটা ভালোবাসতেন যে তিনি তাঁর বাড়ির বেজমেন্টে একটি কলাগাছ লাগিয়েছিলেন! তাঁর চারপাশে যারা থাকত এমনকি তাদের সঙ্গে কোনো কথা না বলেই জুলহাজ তাদের ভালো লাগার অনুভূতি এনে দিতেন। তাঁর কাজ, বন্ধুতা ও অনিঃশেষ হাসি একধরনের ভালো লাগা ও ইতিবাচক অনুভূতি এনে দিত তাঁর চারপাশে, যা শুধু ভাষা দিয়ে প্রকাশ সম্ভব নয়। জুলহাজ জীবনকে ভালোবাসতেন, যেমনটি ভালোবাসতেন তাঁর চারপাশের মানুষদের ও তাঁর দেশকে।

অনুপ্রেরণীয়

যারা তাঁকে চিনত না তাদের হুমকি ও কটূক্তি সত্ত্বেও জুলহাজ নিজের প্রিয় দেশকে কিংবা যে সমাজের উন্নয়নের জন্য লড়াই করেছেন তাকে ছেড়ে যেতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিলেন। বাংলাদেশ ছিল তাঁর স্বদেশভূমি। জুলহাজের বন্ধুরা বলেছেন, যে পরিবর্তনের তিনি স্বপ্ন দেখতেন গত বছরের বসন্তে তা করার জন্য অনুপ্রাণিত ও বদ্ধপরিকর ছিলেন। তাঁর সেই সাহস বেঁচে থাকবে। তিনি আজ আমাদের উদ্বুদ্ধ করেন ন্যায়ের পক্ষে লড়াই করতে, সেখানে যত বাধাই আসুক না কেন বা তার পরিণাম যা-ই হোক না কেন।

শেষ করার আগে জুলহাজ সম্পর্কে শেষ একটি কথা:

পরিবার

জুলহাজ একটি পরিবার। তিনি তাঁর মায়ের প্রতি নিবেদিত ছিলেন, তাঁর ভাই-বোনদের ভালো ও বিশ্বস্ত বন্ধু ছিলেন এবং তাদের সন্তানদের ভালোবাসতেন। যুক্তরাষ্ট্রের ঢাকা দূতাবাসে আমরা তাঁর অন্য একটি পরিবার হিসেবে আমরা তাঁর প্রচেষ্টাকে, আমাদের সম্মিলিত প্রচেষ্টাকে এগিয়ে নেওয়ার অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করছি। সেই প্রচেষ্টা হলো মানবাধিকার সমুন্নত রাখা এবং ধর্ম, বর্ণ, লিঙ্গ, ব্যক্তিগত পছন্দ-অপছন্দ ও বিশ্বাস নির্বিশেষে প্রত্যেক মানুষ যেন তার প্রতিভা বিকাশে সমান সুযোগ পায়। এটি আমার লক্ষ্য এবং আমি যাদের ভালোবাসি সেসব বন্ধু, সহকর্মী, দেশবাসী ও আমার পরিবার, তাদের জন্য আমি প্রতিদিন লড়াই করি, লড়াই করে বেঁচে থাকি।



লেখক : বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত










« PreviousNext »

সর্বশেষ
অধিক পঠিত
এই পাতার আরও খবর
ইনফরমেশন পোর্টাল অব বাংলাদেশ (প্রা.) লিমিটেড -এর চেয়ারম্যান সৈয়দ আবিদুল ইসলাম ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ রওশন জামান -এর পক্ষে সম্পাদক কাজী আব্দুল হান্নান  ও উপদেষ্টা সম্পাদক সৈয়দ আখতার ইউসুফ কর্তৃক প্রকাশিত ও প্রচারিত
ইমেইল: info@iportbd.com, বার্তা বিভাগ: newsiport@gmail.com