Friday, 22 September, 2017, 1:59 PM
Home
যুক্তরাষ্ট্রে আপনাদের স্বাগত
মার্শা বার্নিকাট
Published : Thursday, 20 April, 2017 at 6:39 AM, Count : 149
আমি বাংলাদেশের সেসব শিক্ষার্থীকে অভিনন্দন জানাই, যাঁরা উচ্চশিক্ষার্থে যুক্তরাষ্ট্রের অনুমোদিত চার হাজার পাঁচ শর বেশি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ভর্তির কাগজপত্র পেয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাস করা শিক্ষার্থীরা বিশ্বে নেতৃত্ব দিয়েছেন এবং উদ্ভাবক হিসেবে বিভিন্ন ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন। এবং আপনাদের গর্বিত হওয়া উচিত, কারণ আপনারা আমন্ত্রণ পেয়েছেন এমন এক দল বাছাই করা তরুণের সঙ্গে যোগ দেওয়ার জন্য, যাঁদের জীবন চিরতরে বদলে যাবে যখন যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে এসব প্রাণচঞ্চল, উন্মুক্তমনা এবং মানসম্পন্ন ক্যাম্পাসে তাঁরা অধ্যয়ন করবেন।

বিশ্ববিদ্যালয়গুলো যখন ভর্তির অনুমোদন দিয়ে আবেদনকারীকে কাগজপত্র পাঠিয়ে থাকে, তা হয়ে থাকে আবেদনকারী শিক্ষার্থীর সুচিন্তিত মতামত ও কঠোর পরিশ্রম এবং সেসব আবেদনপত্র নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর চুলচেরা পর্যালোচনার ফসল। ভর্তির আবেদনের সময়ে লিখিত রচনায় আপনাদের স্বপ্ন ও চিন্তার প্রতিফলনে আপনাদের উদ্যম ও সৃজনশীলতার যে প্রকাশ ঘটে থাকে, ইংরেজি ভাষা ও অন্যান্য পরীক্ষার প্রস্তুতিতে আপনারা কঠোর পরিশ্রম করে থাকেন এবং সামাজিক সেবা ও পাঠ্যক্রমবহির্ভূত কার্যক্রমের প্রতি আপনাদের প্রতিশ্রুতির আমরা স্বীকৃতি দিয়ে থাকি।

এখন ১০ লাখেরও বেশি আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থী উচ্চশিক্ষার্থে যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছেন, যা যুক্তরাষ্ট্রকে অনেক দিন ধরে বিদেশি শিক্ষার্থীদের তীর্থভূমি হিসেবে বিশ্বের দেশগুলোর মধ্যে প্রথম স্থান ধরে রাখতে সহায়তা করেছে। এটি আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থী ও তাঁদের পরিবারের চোখে উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে এক অতুলনীয় যুক্তরাষ্ট্রের সাক্ষ্য বহন করে।

যুক্তরাষ্ট্রে উজ্জ্বল ও মেধাবী শিক্ষার্থী পাঠানোর ব্যাপারে বাংলাদেশের বর্ণাঢ্য ইতিহাস রয়েছে। গত বছর যুক্তরাষ্ট্রের বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজে ছয় হাজার পাঁচ শর বেশি বাংলাদেশি শিক্ষার্থী ভর্তি হন। যুক্তরাষ্ট্রে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের মধ্যে স্নাতকোত্তর পর্যায়ে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান ১১তম এবং স্নাতক পর্যায়ে ২৬তম।

বৈচিত্র্যপূর্ণ পটভূমি থেকে আসা আন্তর্জাতিক বিভিন্ন জাতির শিক্ষার্থীরা যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বিশ্বের অন্যান্য দেশের সম্পর্ক গড়ে তোলে, জনগণ ও সমাজের মধ্যে সুসম্পর্ক তৈরি করে, যা বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার জন্য প্রয়োজনীয়। আমরা সবার অন্তর্ভুক্তিকে মূল্য দিই এবং শ্রেণিকক্ষ ও এর বাইরে অনন্য ও বৈচিত্র্যময় দৃষ্টিভঙ্গির জন্য যুক্তরাষ্ট্রের সব ক্যাম্পাসে বর্ণ, নৃগোষ্ঠী, ধর্ম এবং অঞ্চলভেদে সব শিক্ষার্থীকেই সহায়তা করে থাকি। এ মিথস্ক্রিয়ার দরুন সৃষ্ট চমৎকার সুযোগের ফলে যুক্তরাষ্ট্রের শিক্ষার্থীদের মধ্যে ও সমাজে বিশ্বের ব্যাপারে তাদের নিজস্ব দৃষ্টিভঙ্গি বিস্তৃত হয়, যা পরস্পর সংযুক্ত এ বিশ্বে সবার জন্য সফলতর ভবিষ্যৎ গড়তে আমাদের সবাইকে প্রস্তুতি নিতে সহায়তা করে।

সব শিক্ষার্থীর নিরাপত্তা ও উষ্ণ অভ্যর্থনার পরিবেশ প্রদান করে যুক্তরাষ্ট্রের কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলো গর্বিত এবং আমি জোর দিয়ে জানাতে চাই যে যুক্তরাষ্ট্র আপনাদের কতটা উষ্ণভাবে স্বাগত জানিয়ে থাকে। অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ই একত্র হয়েছে সারা বিশ্বের শিক্ষার্থীদের একটি সুনির্দিষ্ট ও সরাসরি বার্তা পৌঁছে দিতে #YouAreWelcomeHere এই প্রচারণার মাধ্যমে। আমিও তাদের সঙ্গে যোগ দিয়ে আপনাদের যুক্তরাষ্ট্রে স্বাগত জানাই, যেখানে আমাদের কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলো মূল্যবান শিক্ষার সুযোগ করে দিয়ে আপনাদের জীবন এবং পেশাগত লক্ষ্য অর্জনে আপনাদের সহায়তা করবে।

যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের কনস্যুলার কর্মকর্তারা অত্যন্ত পরিশ্রম করে থাকেন যোগ্য শিক্ষার্থীদের ভিসা প্রক্রিয়াকরণ নিয়ে। ভিসাপ্রক্রিয়া ও ভিসা পাওয়ার যোগ্যতা সম্পর্কে তথ্য আপনারা পাবেন এই লিংকে—https://travel.state.gov/content/visas/en.html অথবা এই লিংকে—https://bd.usembassy.gov/visas/। বিশ্বব্যাপী এডুকেশন ইউএসএর উপদেষ্টারা সদা প্রস্তুত থাকেন যুক্তরাষ্ট্রে পড়তে যাওয়াসংক্রান্ত যেকোনো প্রশ্নের উত্তর দিতে। https://educationusa.state.gov/ —এই ওয়েবসাইটে আপনারা একজন শিক্ষা উপদেষ্টা পাবেন এবং বাংলাদেশে অবস্থিত তিনটি এডুকেশন ইউএসএ সেন্টারের ব্যাপারে আরো তথ্য জানতে পারবেন। এ ছাড়া ভিসার আবেদন নিয়ে প্রশ্নের উত্তর দিতে প্রতি বৃহস্পতিবার আমরা আমাদের ফেসবুক পেজে সাপ্তাহিক ভিসা চ্যাটের আয়োজন করে থাকি।

আরেকটি তথ্যের উৎস হচ্ছে আমেরিকান অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন www.aaa.net.bd, এটি সেসব বাংলাদেশির একটি সংগঠন, যাঁরা যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে ডিগ্রি লাভ করেছেন এবং যাঁরা নিজেদের অভিজ্ঞতা ও যুক্তরাষ্ট্রে তাঁদের শিক্ষাজীবনের উপকারিতা নিয়ে কথা বলতে আগ্রহী।

বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত হিসেবে আমি ব্যক্তিগতভাবে আপনাদের উৎসাহিত করতে চাই যে যাঁরা ভর্তির অনুমোদন পেয়েছেন তাঁরা যেন এই জীবন বদলে দেওয়ার সুযোগটি গ্রহণ করেন এবং যুক্তরাষ্ট্রে উচ্চতর শিক্ষার অনন্য সুযোগের অভিজ্ঞতা নিতে আপনাদের সঙ্গীদের সঙ্গে যোগ দেন।

যুক্তরাষ্ট্রের কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলো আপনাদের স্বাগত জানাচ্ছে, তেমনি যুক্তরাষ্ট্রের জনগণ ও সমাজও আপনাদের স্বাগত জানাচ্ছে।



লেখক : বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত








« PreviousNext »

সর্বশেষ
অধিক পঠিত
এই পাতার আরও খবর
ইনফরমেশন পোর্টাল অব বাংলাদেশ (প্রা.) লিমিটেড -এর চেয়ারম্যান সৈয়দ আবিদুল ইসলাম ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ রওশন জামান -এর পক্ষে সম্পাদক কাজী আব্দুল হান্নান  ও উপদেষ্টা সম্পাদক সৈয়দ আখতার ইউসুফ কর্তৃক প্রকাশিত ও প্রচারিত
ইমেইল: info@iportbd.com, বার্তা বিভাগ: newsiport@gmail.com